করোনা পুরো বিশ্বের জন্য একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিতি

করোনাভাইরাসের মহামারি পুরো বিশ্বের জন্য একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিতি। বাংলাদেশসহ প্রায় বিশ্বজুড়েই লকডাউন, ছুটি বা সবকিছু প্রায় বন্ধ। কোথাও আংশিক খুলছে। কোথাওবা আরও শক্ত হচ্ছে ঘরে থাকা। মহামারি চলাকালে সবারই মানসিক চাপে পড়ার ঝুঁকি রয়েছে। সবার মতো শিশু, কিশোর আর তরুণদেরও মানসিক চাপ বাড়বে। একদিকে স্কুল–কলেজ বন্ধ, পড়ালেখা-পরীক্ষা কী হবে না হবে, তা নিয়ে অনিশ্চয়তা, সহপাঠী বন্ধুদের সঙ্গে সরাসরি সাক্ষাৎ হচ্ছে না, আরেক দিকে বাসায় থাকতে থাকতে একঘেয়েমিতে পেয়ে বসেছে, নেই মাঠে গিয়ে কোনো খেলাধুলার সুযোগ। আর অন্য সবার মতো তাদের মনেও আছে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়ার ভয়, সংক্রমিত হয়ে গেলে চিকিৎসা নিয়ে অনিশ্চয়তা এবং মৃত্যুভীতি। নতুন জীবনধারা, নিয়মকানুনের সঙ্গে মানিয়ে চলাও কঠিন মনে হতে পারে। তার ওপর যদি মা–বাবারা তাঁদের নিজেদের উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠাগুলো সন্তানের ওপর চাপিয়ে দেন, তখন শিশু–কিশোর–তরুণদের মানসিক স্বাস্থ্য আরও বিপন্ন হয়ে পড়ে।