গণপরিবহনে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি,চলছে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়

সায়মন শাহদাত ডেক্স প্রতিবেদনঃ প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সংক্রমণের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানা সহ অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের শর্তে গণ পরিবহন চালানোর অনুমতি দেয় সরকার। সে জন্য মালিকদের ক্ষতি পোষাতে ৬০ শতাংশ ভাড়াও বাড়ানো হয়। এরপরেও অভ্যন্তরীন সড়কে চলাচলকারী বাস গণ পরিবহনগুলো নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করে চলেছে । তবুও মিলছেনা নূন্যতম স্বাস্থ্য বিধি। এতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ বৃদ্ধিসহ পরিবহন সেক্টরে নৈরাজ্যের সৃষ্টি হয়েছে। অতি কস্টে আছেন যাত্রী সাধারণ। যেসব গণ পরিবহন স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘন ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে তাদের বিরুদ্ধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার পাশাপাশি সড়ক পরিবহন আইনের সংশ্লিষ্ট ধারা/প্রচলিত বিধি-বিধান অনুযায়ী রেজিস্ট্রেশন ও রুট পারমিট বাতিল করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল। জানা যায়, গত দু’মাস ধরে লক ডাউনের দোহাই দিয়ে স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষাসহ সরকার নির্ধারিত ভাড়ার অতিরিক্ত অর্থ আদায় করছে পরিবহন কর্তৃপক্ষ। উঠানামা ভাড়া ছিল ৫ টাকা, বর্তমানে ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ১০ টাকা করোনায় মানুষের আয় কমলেও ভাড়া বাড়ার কারণে যাত্রীদের জন্য কস্টকর বলে জানান অনেকে। তাছাড়া জীবানুনাশক স্প্রে প্রয়োগসহ স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নেরও তেমন উদ্যোগনেই সংশ্লিষ্টদের। সরজমিন গিয়ে দেখা যায়, যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হয়েছে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করে যাত্রী বহন করার কথা থাকলেও এসব সড়কে চলাচলকারী পরিবহনে গা ঘেঁষাঘেঁষি করে যাত্রী বহন করা হচ্ছে। ৪০ সিটের বাসে বিশ জন যাত্রী নেওয়ার কথা থাকলেও নেয়া হচ্ছে ৩০ জনের অধিক যাত্রী। কয়েক জনের মুখে মাস্ক দেখা গেলেও অনেকের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি। এছাড়া জীবাণু নাশক স্প্রে করার কথা থাকলেও তা করা হচ্ছেনা পরিবহনগুলোতে। অন্য যানবাহন গুলোতেও একই অবস্থা চলছে বলে জানান যাত্রীরা।