ঠাকুরগাঁওয়ে করোনার বিরুদ্ধে প্রচারাভিযান

 

 

আব্দুল কাদের জিলানী ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃমহামারী করোনা সংক্রমণের সাম্ভাব্য দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় গণসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ঠাকুরগাঁওয়ে ছয় কিলোমিটার সড়ক জুড়ে অবস্থানসহ প্রচারাভিযান কর্মসূচির পালন করা হয়েছে।সোমবার ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শহরের পুরাতন বাসস্ট্যান্ড থেকে স্টেশন রোড পর্যন্ত সড়কের দুইপার্শ্বে ঘন্টাব্যাপী এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

এ কর্মসূচিতে সরকারী-বেসরকারী অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী, জেলা আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী, মুক্তিযোদ্ধা জেলা কমান্ডসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া সংগঠনের শত শত কর্মী অংশগ্রহন করেন। এসময় পুরো এলাকায় লোকেলোকারণ্যে পরিণত হয়।

এসময় চৌরাস্তায় এলাকায় কর্মসূচিতে যোগদান করে বক্তব্য দেন. আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঠাকুরগাঁও-১ আসনের সংসদ সদস্য রমেশ চন্দ্র সেন, জেলা প্রশাসক ড.কে.এম কামরুজ্জামান সেলিম, সিভিল সার্জন ডা. মাহফুজার রহমান সরকার, পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দীপক কুমার রায়।

নো মাস্কা নো সার্ভিস” উল্লেখ্য করে বলেন, করোনা সংক্রমণের সম্ভাব্য দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় গণসচেতনতা বৃদ্ধির কোন বিকল্প নেই। এসময় অবশ্যই সকলকে সচেতন থাকতে হবে এবং বাধ্যতামূলক মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। যদি কেউ মাস্ক ব্যবহার না করেন, আইন না মানেন তবে তার বিরুদ্ধে কঠোরভাবে আইনের প্রয়োগ করা হবে।

পরে বক্তাগন সাধারণ জনগনের মুখে নিজ হাতে মাস্ক পড়িয়ে দেন। তবে এ কর্মসূচি পালনকালে সামাজিক দূরত্ব রক্ষা না করায় ঝুঁকিপূর্ণ পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে বলে অনেকে মন্তব্য করেন। পরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে সিভিল সার্জন ডা. মাহফুজার রহমান সরকার জানান, জেলায় সর্বশেষ নতুন করে ১০ জন (সদর উপজেলা-০৬ জন এবং পীরগঞ্জ-০৪ জন) করোনা সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। পূর্বের রিপোর্টসহ ঠাকুরগাঁও জেলায় সর্বমোট করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা এক হাজার ৩২৭ জন, যাদের মধ্যে এক হাজার ১৬৫ জন সুস্থ  হয়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন এবং এপর্য়ন্ত জেলায় ২৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।