ব্রেকিং নিউজ » নগরীতে একুশের চেতনা শহীদ মিনারে মানুষের ঢল

করোনা মহামারির মধ্যেও আজ রোববার নানা আয়োজনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও মহান শহীদ দিবস পালিত হচ্ছে বাঙালির মাথা উঁচু করে দাঁড়ানোর এ দিনের প্রথম প্রহর থেকেই চট্টগ্রামে গভীর শ্রদ্ধায় বীর শহিদদের স্মরণ করেছে নগরবাসী।মহান ভাষা আন্দোলন সহ মুক্তিসংগ্রামে জীবন দেয়া বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে একুশের প্রথম প্রহরে ঢল নেমেছিল চট্টগ্রামের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা-ভালোবাসার ফুলে ফুলে ভরে গেছে শহীদ মিনার রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরের আগেই ভরে উঠে পুরো এলাকা জনশ্রোত।বিনম্র শ্রদ্ধা ও যথাযথ মর্যাদায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে, চলছে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন।করোনায় বিধিনিষেধ থাকলেও তা উপেক্ষা করেই একুশের প্রথম প্রহর থেকেই, শহীদ মিনারে হাজারো মানুষের ভিড়ে লোকে লোকারণ্য হয়ে উঠে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ। ।
মা-বাবার হাত ধরে যেমন ছোট্ট শিশু ফুল নিয়ে এগিয়ে আসে, প্রভাতফেরিতে আসে নানা রয়সের শিশুরাও। কেউবা আবার আসে কোলে চড়ে। তেমনি মানুষের ঢল দেখে শহীদ মিনারের সামনে গিয়ে নত মস্তকে দাঁড়ান। কেউ কেউ মাইকে বাজছে অমর একুশের সেই অবিনাশী গান ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি…এসময় শ্লোগানে শ্লোগানে মুখর হয়ে উঠে পুরো শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ চসিক।মেয়র, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের প্রশাসক নগর আওয়ামী লীগ শহীদ মিনারে ফুল দেন।


এরপর পর্যায়ক্রমে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক , জেলা পুলিশ সহ বিভিন্ন সরকারী প্রতিষ্ঠানের উর্দ্ধতন কর্মকর্তারা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন ও প্রেসক্লাব, আনসার-ভিডিপি, ফায়ার সার্ভিস, বন বিভাগ, চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের পক্ষ থেকেও পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।সাংসদ, সরকারী কর্মকর্তাদের পুস্পস্তবক অর্পণের পালা শেষ হবার পর শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামে।
এরপর নগর বিএনপির জাপা, ওয়ার্কার্স পার্টি, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, শ্রমিক লীগ, ট্রাস,বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম মহানগর, মুক্তিযুদ্ধের ৭১ চেতনা সাংস্কৃতিক সংগঠন সমন্বয় পরিষদ, চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, আইনজীবী ক্লার্ক এসোসিয়েশন,বোধন আবৃত্তি সংগঠনপ্রমা আবৃত্তি সংগঠন,সমন্বিত আবৃত্তি পরিষদা বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, আমরা রাসেল চট্টগ্রাম বসুন্ধরা সাংস্কৃতিক সংগঠন স্বর্ণশিল্পী ঐক্য পরিষদসহ আরও বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।এদিকে বন্দরনগরী চট্টগ্রামে একুশে ফেব্রুয়ারিকে ঘিরে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পুলিশ। শহীদ মিনারের নিরাপত্তায় বিশেষ বাহিনীও দায়িত্ব পালন করে।


নগর পুলিশ কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে, নিরাপত্তার জন্য চট্টগ্রাম নগরীকে তিনটি সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে, শহীদ মিনার, শহীদ মিনারের আশপাশের এলাকা এবং পুরো নগরী।এর মধ্যে শহীদ মিনার এবং আশপাশের এলাকায় সার্বক্ষণিক পুলিশ ফোর্স মোতায়েনের পাশাপাশি নগরীতে পুলিশের একাধিক টিম টহল ডিউটিতে রাখা হয়েছে।