চসিকর প্যানেল মেয়রের জন্য দৌড় ঝাপ আজ সিদ্ধান্ত

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) বহুপ্রতীক্ষিত প্যানেল মেয়র নির্বাচনে দৌড়ঝাপ শুরু হয় (চসিক) নির্বাচনের মেয়র হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিম চৌধুরী দায়িত্ব গ্রহণ করার পর পর । চসিকের নির্বাচিত ষষ্ঠতম পরিষদ এ পরিষদে কারা আসছেন প্যানেল মেয়র হিসেবে সেই আলোচনা চলছে শপথগ্রহণের আগে থেকেই।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) দেওয়ানবাজার (২০ নম্বর ওয়ার্ড) থেকে সদ্য জয়ী কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ গত ২বার প্যানেল মেয়র ছিলেন তবে এবার ভিন্নতা
নবনিযুক্ত চসিকর মেয়রের পর কোন কাউন্সিলর থেকে ৩জন প্যানেল মেয়র গঠন করবেন? এমন প্রশ্ন এখন সচেতন মহলে।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে,চসিকের বিগত সময়ে প্যানেল মেয়র ভোটাভুটি বা মৌখিক সমর্থনে হলেও এবারের সমীকরণ জটিল।
চসিকের প্যানেল গঠিত হলে সেখানে কে কে সদস্য হওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন তা নিয়েও ঢাকায় দৌড় ঝাপের কমতি নেই। চলছে বিভিন্ন মন্ত্রী এমপির দুয়ারে জোর তদবির।চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীলদের মতামত জানতে চাইলে তাঁরা এ ব্যাপারে মন্তব্য করতে রাজি হননি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কেউ কেউ বলেন, প্যানেলে অন্তর্ভূক্ত হওয়ার জন্য আগ্রহী অনেকে আছেন। ইতিমধ্যে তারা নানা ভাবে তদবিরও চালিয়ে যাচ্ছেন। সবকিছু নির্ভর করবে দলের উচ্ছ পর্যায়ের নির্দেশনা ও মতামতের উপর।বিজয়ী কাউন্সিলরদের মাঝে সাবেক মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীনের অনুসারীর চেয়ে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল অনুসারীদের সংখ্যাই বেশি। যার কারণে মেয়রের কথার চেয়ে প্রধান দুই নেতার কথায় হবে চূড়ান্ত। তবে একটি সূত্র জানিয়েছে, নাছির-নওফেল সমঝোতার মাধ্যমে প্যানেল মেয়র হিসেবে নিজেদের প্রতিনিধি নির্বাচিত করার জন্য নিজ নিজ অনুসারী কাউন্সিলরদের বিশেষ নির্দেশা দিয়েছেন। প্যানেল মেয়র হতে সম্ভাব্য আগ্রহী কাউন্সিলররা নির্বাচনের পর চালিয়ে যাচ্ছেন লবিং। সমঝোতার প্যানেল হতে যাওয়ায় জোর প্রতিদ্ধন্দ্বিতা হচ্ছে নিজেদের মাঝে। নবীন- প্রবীণ মিলিয়ে অনেকেই এবার প্যানেল মেয়র পদে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু সমঝোতার প্যানেলের বিষযটি আঁচ করতে পেরে অনেকে এখন পিছুটান দিয়েছেন।নওফেল অনুসারীদের মাঝে রয়েছেন আব্দুস সবুর লিটনজহর লাল হাজারী, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর থেকে নীলু নাগ ও জোবাইদা নার্গীস খান, নাম আলোচনায় আছে। এর মধ্যে জহর লাল হাজারী,, নীলু নাগ সবচেয়ে বেশি । আ.জ.ম নাছিরের অনুসারী ড. নিছার উদ্দিন আহমদ মন্জু, হাসান মাহমুদ চৌধুরী হাসনি, শৈবাল দাস সুমন, আলোচনায় আছেন।