টাইগার বোলিং দাপটে ধুঁকছে দক্ষিণ আফ্রিকা

দক্ষিণ আফ্রিকা নারী দলের বিপক্ষে টানা তিন ম্যাচ জিতে ইতোমধ্যেই পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজ নিজেদের করে নিয়েছে বাংলাদেশ নারী দল। এবার হোয়াইটওয়াশের লক্ষ্যে সিরিজের চতুর্থ ম্যাচে মাঠে নেমেছে নিগার সুলতানা বাহিনী। ম্যাচে অধিনায়কের অনবদ্য শতকে চড়ে ২৩৬ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়ে বাংলাদেশ।

এতে সালমা, নাহিদা ও লতার বোলিং তোপের মুখে মাত্র ৩২ রানেই ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে দক্ষিণ আফ্রিকা নারী দল। পরে লেগস্পিনার ফাহিমা খাতুনের মায়াবী ঘূর্ণিতে আরও ৩৪ রান যোগ করতেই হারিয়ে বসে আরও ৩টি উইকেট। অর্থাৎ টাইগার বোলিং দাপটে ৬৬ রানেই ৬ উইকেট হারিয়ে এখন ধুঁকছে সফরকারীরা।

যদিও দলের এই ধ্বংসস্তুপের মাঝে দাঁড়িয়েই ফিফটি হাঁকিয়েছেন আন্নে বস্ক। এই মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানের কল্যাণে ৩৮ ওভারে দলীয় স্কোরকে একশ পার করেছে প্রোটিয়ারা। ৬৭ বলে ৫২ রান নিয়ে দলকে ভরসা দিচ্ছেন বস্ক। মাত্র ২৫ রানের বিনিময়ে একাই প্রতিপক্ষের ৩টি উইকেট তুলে নেন ফাহিমা খাতুন।

এর আগে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ২৩৬ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ ইমার্জিং নারী দল। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১০১ রান করেন নিগার সুলতানা জোতি। অধিনায়কের ১৩২ বলের এই ইনিংসে ছিল ৮টি চারের সঙ্গে একটি ছক্কার মার।

এছাড়া দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৫ রান আসে শোভানা মোশতারির ব্যাট থেকে। তার ৫২ বলের সময়োপযোগী এ ইনিংসে ছিল তিনটি চারের সঙ্গে একটি ছক্কার মার। ওপেনার মুরশিদার ব্যাট থেকেও আসে মূল্যবান ৪১টি রান। আর শেষ দিকে ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন লতা মণ্ডল। তার ১৬ বলে ২৫ রানের ঝোড়ো ইনিংসেই মূলত সোয়া দুইশ ছাড়ায় দলের স্কোর। একটি করে চার ও ছয় হাঁকান লতা।

আজ রোববার সকালে সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। যদিও দলীয় মাত্র ১৬ রানেই প্রথম উইকেট হারিয়ে ফেলে স্বাগতিকরা। ২১ বলে ১০ রান করে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার শারমিন সুলতানা।

তবে এরপর ৭২ রানের জুটি গড়ে প্রাথমিক ধাক্কা সামাল দেন মুরশিদা খাতুন ও অধিনায়ক নিগার সুলতানা। এ পর্যায়ে রান আউটে কাটা পড়ে বিচ্ছিন্ন হন ওপেনার মুরশিদা। ফেরার আগে ৪১ রান আসে তার ব্যাট থেকে। তার ৭৮ বলের ইনিংসে ছিল পাঁচটি চারের মার।

এরপর ক্রিজে এসে থিতু হতে পারেননি ফারজানা হক। মাত্র ১ রান করেই নবুলুমকো বেনিতেই এর শিকার হন প্রথম ম্যাচের নায়িকা। যাতে ১০৫ রানেই তৃতীয় উইকেট হারায় বাংলাদেশ। পরে শোভানা মোশতারিকে নিয়ে দলের রান বাড়াতে মনযোগী হন নিগার সুলতানা।

সিরিজে নিজের দ্বিতীয় ফিফটি তুলে নিয়ে সেঞ্চুরির লক্ষ্যেই ছুটতে থাকেন অধিনায়ক। চতুর্থ উইকেটে শোভানাকে (৪৫) সঙ্গে নিয়ে গড়েন অনবদ্য ৯৭ রানের জুটি। দলীয় ২০২ রানে শোভানা ফিরলে নিগারের সঙ্গী হন লতা। এই ব্যাটারের ঝড়ে শেষ ২৩ বলে ৩৪ রান যোগ করে বাংলাদেশ। যাতে দলের স্কোর দুইশ ত্রিশ ছাড়ায়।

প্রোটিয়া নারীদের পক্ষে মিকেলা অ্যান্ড্রিউস, নবুলুমকো বেনিতেই ও লিচ জোনস একটি করে উইকেট লাভ করেন।