অবৈধ গ্যাস-সংযোগ লিকেজ নগরীর কোরবাণীগঞ্জ ভয়াবহ বিস্ফোরণ থেকে রক্ষা

নগরীর কোরবাণীগঞ্জ এলাকায় আবাসিক গ্যাস-সংযোগটি অবৈধ। দীর্ঘদিন ধরে এক মহিলা সন্ত্রাসী নিজে আশে পাশে আবাসিক গ্রাহকেরা যে উপায়ে গ্যাস ব্যবহার করার পথ বেছে নিয়েছেন। তবে উপায়টি অবৈধ।মাটির উপর দিয়ে যেনতেন উপায়ে লাইন একস্হান হতে অন্যস্হানে সংযোগ দিয়েছেন যা ছিলযে কন দুর্ঘটনা ঘটা আশাংখ্যা থেকে যায়।প্রতিদিন তখন এক অজানা শঙ্কায় বুক দুরুদুরু করে।আজ বুধবার ১৪ এপ্রিল বিকাল ৪টায় নতুন ১টি আবাসিক ভবনে গ্যাস দুর্ঘটনায় অগ্নিকাণ্ড ঘটেছে গ্যাস লাইনের ছিদ্র থেকে,
মহানগরীসহ দেশের বিভিন্ন শহরে গ্যাসের আগুনে প্রাণ গেছে বহু মানুষের। অথচ গ্যাস ব্যবহার আমাদের নাগরিক জীবনে একটা অতি সাধারণ বিষয় হওয়ার কথা। সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের একটি মসজিদে গ্যাস দুর্ঘটনায় প্রাণ গেছে বেশ কয়েকজন মুসল্লির, যারা নামাজ আদায় করতে এসেছিলেন। আর এই প্রাণসংহারী ঘটনাগুলো চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় এ দেশে সাধারণ মানুষের জীবন কত সস্তা।কিছু এলাকাগুলোতে গ্যাস দুর্ঘটনার একটা বড় কারণ অবৈধ গ্যাস সংযোগ। যখন বৈধ উপায়ে গ্যাস সংযোগ দেয়া হয় না কোনো বাড়িতে বা কারখানায়, তখনই মানুষ অবৈধ সংযোগের জন্য দালালদের কাছে ধরনা দেয়। দালালরাও তাদের নিজেদের কায়েমি স্বার্থে জনগণের নিরাপত্তার কথা চিন্তা না করেই কিছু অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারীর সহায়তায় অবৈধভাবে গ্যাস সংযোগ দেয়। এসব অবৈধ সংযোগে যে গ্যাস ব্যবহৃত হয় তা সিস্টেম লসে ঢুকিয়ে দেয়া হয়। অবৈধ গ্যাস সংযোগের বিরুদ্ধে তেমন কোনো ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হয় না। কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে কর্তৃপক্ষ তখন কিছুটা নড়েচড়ে বসে, কিছু অভিযান পরিচালনা করে। আর তার ফলে অনেক সংযোগ লাইন বিচ্ছিন্ন করা হয়, কিছু ঠিকাদারকে কালো তালিকাভুক্তও করা হয়।