নওগাঁয় লকডাউন বাস্তবায়ন ও বাজার দর নিয়ন্ত্রনে মাঠে জেলা প্রশাসক

নওগাঁ প্রতিনিধি:আজ বৃহষ্পতিবার(১৫এপ্রিল)সর্বাত্মক লকডাউন বাস্তবায়ন ও বাজার দর নিয়ন্ত্রনে রাখতে নওগাঁ শহরের বিভিন্ন সড়ক ও কাঁচাবাজারগুলো মাঠ পরিদর্শনে নেমেছেন জেলা প্রশাসক মো: হারুন অর রশিদ।আজ বেলা ১১টা থেকে দুপুর পর্যন্ত শহরের বালুডাঙ্গা বাসষ্ট্যান্ড, সিও অফিস, মুক্তির মোড়, বাটার মোড়, পুরাতন বাসষ্ট্যান্ড, কাঁচাবাজার ও টিসিবির পণ্য বিক্রয়সহ বিভিন্ন পয়েন্টে আকষ্মিক পরিদর্শন করেন তিনি।

এসময় খবর পেয়ে ম্যাজিষ্ট্রেট ও বাজার কর্মকর্তা ছুটে আসেন জেলা প্রশাসকে কাছে। জেলা প্রশাসক এসময় সরকার নির্ধারিত লকডাউনে যারা বিভিন্ন অযুহাতে বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন ও রিক্সা-ভ্যান ও মোটরসাইকেল নিয়ে বের হচ্ছেন তাদেরকে বুঝিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দিচ্ছেন।

এছাড়াও কাঁচাবাজার গুলোতে লকডাউনের ভিতর স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল ও রমজান মাস উপলক্ষে যাতে কেউ অতিরিক্ত দামে জিনিসপত্র বিক্রি করতে না পারে এ বিষয়ে মনিটরিং করেন। সবাইকে বাজার দরের মূল্যে তালিকা দোকানের সামনে ঝুলিয়ে রাখার নির্দেশ দেন।

জেলা প্রশাসক মোঃ হারুন অর রশিদ বলেন করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে সারা দেশের ন্যায় নওগাঁতেও দ্বিতীয় দিনের মত লকডাউন চলছে। এই লকডাউন বাস্তবায়নে আমরা সকলেই মাঠে কাজ করছি এবং সকলেই আমাদের সহযোগীতা করছে। তারপরও যারা কারনে অকারনে ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন তাদেরকে আমরা সহনশীলভাবে বুঝিয়ে বাড়ি পাঠাচ্ছি। এবং যারা প্রয়োজনে ঘরের বাইরে বের হচ্ছে তাদেরকে অবশ্যই মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের আহবান জানান তিনি।

তিনি আরো বলেন, কাঁচাবাজারগুলোতে যাতে সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করে সেজন্য সবাইকে আমরা সচেতন করছি। এছাড়াও রমজান মাস উপলক্ষে এই লকডাউনের ভিতরে কাঁচাবাজার গুলোতে যাতে কেউ জিনিসপত্রের অতিরিক্ত মূল্যে নিতে না পারে সেদিকেও আমরা নজর রাখছি ও যারা অতিরিক্ত দাম নিচ্ছে তাদের জরিমানা করা হচ্ছে।

অপরদিকে সকাল থেকেই শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় পুলিশ চেকপোস্ট বসিয়েছে, অভিযানও চালাতে দেখা গেছে। এসব চেকপোস্টে গাড়ি থামিয়ে যাত্রীদের পরিচয় এবং রাস্তায় বের হওয়া কারণ জানতে চায় পুলিশ। যেসব পেশার মানুষ জরুরি সেবার সঙ্গে সম্পৃক্ত তাদের চেকপোস্ট অতিক্রম করার অনুমতি দিয়ে অন্যদের ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে।