রোজিনা ইসলামকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় জাতিসংঘের উদ্বেগ

মঙ্গলবার (১৮ মে) নিয়মিত ব্রিফিংয়ে জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন ডুজারিক উদ্বেগের কথা জানান। তিনি বলেন, বিষয়টিতে জাতিসংঘের নজর রয়েছে। এটি অবশ্যই উদ্বেগের বিষয়।

স্টিফেন ডুজারিক আরো বলেন, এ বিষয়ে জাতিসংঘের অবস্থান পরিস্কার, কোন ধরনের হয়রানি বা শারীরিক নির্যাতন ছাড়া পৃথিবীর সব দেশে সাংবাদিকদের তাদের দায়িত্ব স্বাধীনভাবে পালনের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। অবশ্যই বাংলাদেশও তার অন্তর্ভুক্ত। মহামারিকালে বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকেরা অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ করেছেন। তারা যেখানেই কাজ করুন না কেন, তাদের কাজ চালিয়ে যেতে দিতে হবে বলেও মন্তব্য করেন জাতিসংঘের মুখপাত্র।

উল্লেখ্য, সোমবার (১৭ই মে) পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে সংবাদ সংগ্রহের জন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে গেলে প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে ৬ ঘণ্টা আটকে রেখে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ ওঠে। এসময় একটি কক্ষে আটকে রাখার পাশাপাশি তার মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়া হয়। ঘটনার এক পর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন রোজিনা। ঘটনার এক পর্যায়ে রোজিনাকে হাসপাতালে নেয়ার কথা বলে শাহবাগ থানায় নেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

পরে, রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ নথির ছবি তোলা ও নথি নিজের কাছে রাখার অভিযোগে গত সোমবার রাজধানীর শাহবাগ থানায় রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উপ-সচিব শিব্বির আহমেদ ওসমানী বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় মামলাটি দায়ের করেন। রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৩৭৯ ও ৪১১ ধারায় এবং অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের ৩ ও ৫ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। পরবর্তীতে এই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।