ব্রেকিং নিউজ »সমুদ্রবন্দরকে ২ নম্বর সংকেত আবারো চট্টগ্রাম নগরী জোয়ারে প্লাবিত

ছবি বিপ্লব সেনঃ পূর্ণিমা ও ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে সৃষ্ট অস্বাভাবিক জোয়ারে বন্দরনগরী চট্টগ্রাম ও উপজেলার নিম্নাঞ্চল গুলোর বিভিন্ন জেলা প্লাবিত হচ্ছে। (২৬ মে) আঘাত কিন্তু এর আগেই সমুদ্র বন্দরে কিছুটা প্রভাব পড়তে শুরু করেছে।
সাগরে লঘুচাপ এবং পূর্ণিমার জোয়ারে প্লাবিত হচ্ছে দ্বীপের বিস্তীর্ণ এলাকা একইভাবে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে ।বঙ্গোপসাগর বেশ উত্তাল রয়েছে। সাগর ও নদীর পানি স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে দুই থেকে তিন ফটু উচ্চতায় বৃদ্ধি পেয়েছে উত্তাল সাগরে, উপকূলের নিচু এলাকা লোনা পানিতে ডুবে গেছে। এতে করে ফসলের বীজতলা, পুকুরের মাছ ও রাস্তা-ঘাটের ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে। বর্ষা মৌসুমে জোয়ার-ভাটায় সাগরের সাথে একাকার হয়ে গেছে অরক্ষিত কুতুবদিয়ার জনপদ। ‘পূর্ণিমার কারণে অতি জোয়ারে কর্ণফুলী, হালদাসহ শাখা নদীগুলোতে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া উত্তর পশ্চিম বঙ্গোসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় সৃষ্ট লঘুচাপ এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোসাগরে মৌসুমি বায়ু সক্রিয় রয়েছে এবং বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য বিরাজ করছে।’ নদীবন্দরকে ১ নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।লঘুচাপের প্রভাব ও বাংলাদেশের ওপর মৌসুমি বায়ু সক্রিয়া থাকার কারণে সমুদ্র উত্তাল ২ নম্বর দূরবর্তী হুশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অফিস। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরা ট্রলারকে নিরাপদে আশ্রয় নিতে বলা হয়েছে


ঘূর্নিঝড় ইয়াসের প্রভাবে বাতাসের গতিবেগ অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। গতকাল বিকাল থেকে উপকূলীয় এলাকায় থেমে থেমে হালকা মাঝারি বৃষ্টিপাত হচ্ছে।