সাংবাদিক রোজিনার ক্ষেত্রে যা হলো, তা অনভিপ্রেত-তথ্য মন্ত্রী

বুধবার জুন ৯, ২৭ জ্যৈষ্ঠ ‘সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আলহামরা নাসরিন হোসেন লুইজা সম্পাদিত ‘ছবির ভাষায় মহানায়ক বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ’শীর্ষক অ্যালবাম প্রকাশনা উৎসবে সমসাময়িক বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন তথ্য সংগ্রহ করার নিয়ম আছে। তথ্য সংগ্রহ আর চুরির মধ্যে প্রভেদ ভুলে এটিকে গুলিয়ে ফেলা ঠিক নয়।
তথ্য সংগ্রহ আর চুরি এক না বলেও মন্তব্য করে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ।বলেন সরাসরি তথ্য চেয়ে না পেলে, তথ্য অধিকার আইন ব্যবহার করা যায়। মন্ত্রী সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের ক্ষেত্রে যা হলো, তা অনভিপ্রেত বলে মন্তব্য করেন ।রোজিনার ঘটনাটি অনভিপ্রেত। সেটি আমি আগেও বলছি, আজকেও একই কথা বলবো। কিন্তু দুর্নীতি বা যেকোনো বিষয়ের তথ্য সংগ্রহের জন্য মন্ত্রণালয় বা যেকোনো অফিসে সাংবাদিকরা যেমন আবেদন করতে পারে, নাগরিকরাও করতে পারে। সে পদ্ধতিতে তথ্য না পেলে তথ্য কমিশন আছে। সেখানে আবেদন করলে কমিশন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তথ্য দেওয়ার জন্য বলে এবং গাফিলতি হলে জরিমানাসহ নানা ধরণের শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করে। সুতরাং দুর্নীতি বা যেকোনো তথ্য প্রাপ্তি নিশ্চিত করতেই শেখ হাসিনার সরকার তথ্য কমিশন গঠন করেছে এবং সেভাবে মানুষ তথ্য পাচ্ছে।’
‘প্রত্যেক মন্ত্রীকে দুটি শপথ নিতে হয়, একটি হচ্ছে মন্ত্রী হিসেবে আরেকটি রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা রক্ষা করার’উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা রক্ষা করা যেকোনো মন্ত্রীর দায়িত্ব। টিআইবি এক্ষেত্রে তথ্য সংগ্রহ এবং তথ্য চুরি দুটি বিষয়কে গুলিয়ে ফেলেছে বিধায় আমি টিআইবির এই বক্তব্যের সঙ্গে একমত নই। টিআইবির মতো সামাজিক সংগঠনের দরকার আছে। তারা স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করে। তবে অতীতে দেখা গেছে টিআইবি বিভিন্ন বিষয়ে গবেষণার কথা বললেও অনেকক্ষেত্রে গবেষণা না করে শুধু রিপোর্ট তৈরি করে সেটিকে গবেষণা বলে চালিয়ে দেয়, যেটি সমীচীন নয়।

টিকা নিয়ে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ-টিআইবি’র বক্তব্যের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম দেশ, যারা প্রথম দিকে টিকা দিয়েছে দেশের জনগণকে। কিন্তু, এখন বাস্তবতা ভিন্ন। কাজেই ঠিকঠাক টিকা দেয়া হচ্ছে না, এটা টিআইবির ভুল মন্তব্য।

টিআইবির মতো সংস্থার প্রয়োজন আছে, কিন্তু তারা যে সবসময় গবেষণা করে, তা না। অনেক সময় কোনও গবেষণা ছাড়াই তারা প্রতিবেদন প্রকাশ করে বলেও মন্তব্য করেন ড. হাছান মাহমুদ।