সাম্প্রদায়িক ‘অপশক্তির তৎপরতা’ প্রতিহত করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ব্রেকিং নিউজ-সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধে দলের নেতা-কর্মীদের মাঠে নামার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

কুমিল্লার অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাকে কেন্দ্র করে সংখ্যালঘুদের ওপর যে হামলা ও লুটপাটের ঘটনা ঘটছে তা প্রতিরোধে দলের নেতা-কর্মীদের মাঠে নামার নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দলীয় সভাপতির নির্দেশে কাল মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বেলা ১১টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা করবে আওয়ামী লীগ। এছাড়া বিকেলে সারা দেশে একই কর্মসূচি পালন করবে দলটি। কর্মসূচির আওতায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনসমূহ দেশের সব মহানগর, জেলা ও উপজেলায় ‘সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা’ আয়োজন করবে। এছাড়া দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করবেন।

আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক জরুরি সভায় এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এসময় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি নেতাদের বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা দেন।

সভায় শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীকে দেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধ করার নির্দেশ দেন এবং যেকোনো মূল্যে বাংলাদেশের হাজার বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য সমুন্নত রাখার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ যখন বিশ্বসভায় একটি মর্যাদাশীল রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ঠিক সে সময়ে একটি চিহ্নিত মহল পরিকল্পিতভাবে দেশে সাম্প্রদায়িক হানাহানি সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে। সরকার ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করেছে। ইতোমধ্যে অনেকেই গ্রেফতার হয়েছে এবং বাকিদেরও আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে। কর্মসূচির আওতায় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনসমূহ দেশের সব মহানগর, জেলা ও উপজেলায় ‘সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা’ আয়োজন করবে। এছাড়া দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করবেন।

আজ সোমবার (১৮ অক্টোবর) সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক জরুরি সভায় এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এসময় ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি নেতাদের বিভিন্ন দিক-নির্দেশনা দেন।

সভায় শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগের সব পর্যায়ের নেতা-কর্মীকে দেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তৎপরতা প্রতিরোধ করার নির্দেশ দেন এবং যেকোনো মূল্যে বাংলাদেশের হাজার বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য সমুন্নত রাখার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ যখন বিশ্বসভায় একটি মর্যাদাশীল রাষ্ট্র হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ঠিক সে সময়ে একটি চিহ্নিত মহল পরিকল্পিতভাবে দেশে সাম্প্রদায়িক হানাহানি সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে। সরকার ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করেছে। ইতোমধ্যে অনেকেই গ্রেফতার হয়েছে এবং বাকিদেরও আইনের আওতায় আনার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।