বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার‘ফাটল’ দেখতে উৎসুক জনতা ভিড়

বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার‘ফাটল’ দেখতে উৎসুক জনতা ভিড়
নির্মাণের চার বছরের মাথায় এম এ মান্নান ফ্লাইওভারের (বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার) আরাকান সড়কমুখী একটি র‌্যাম্পের পিলারে ফাটল দেখা দিয়েছে। দুর্ঘটনা এড়াতে সোমবার রাত ১১টার দিকে র‌্যাম্পটিতে যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বহদ্দাহারহাট ফ্লাইওভারের কালুরঘাটমুখী র‌্যাম্পে যান চলাচল বন্ধ থাকার প্রভাবে আজ ও তীব্র যানজট ছিল বহদ্দারহাট মোড়ে। কারণ, কালুরঘাট বা রাস্তার মাথা থেকে আসা বিভিন্ন যানবাহন র‌্যাম্পটিতে ওঠে বহদ্দারহাট মোড় পার হয়ে যেত। একইভাবে দুই নম্বর গেট ও মুরাদপুর থেকে যাওয়া বেশিরভাগ গাড়িও র‌্যাম্পটি ব্যবহার করত। ফলে গাড়ির চাপ কমে গিয়েছিল বহদ্দারহাট মোড়ে।
কিন্তু দুটি পিলারে ‘ফাটল’ দেখা দেওয়ার পর গত সোমবার রাত ১১টা থেকে র‌্যাম্পটিতে যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। ফলে উভয় দিকের গাড়ি ফ্লাইওভার ব্যবহার না করে মূল সড়ক ব্যবহার করায় বৃদ্ধি পায় যানজট। অবশ্য আজ বুধবার পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের বিশেষজ্ঞ দলের মতামত পাওয়ার পর যান চলাচলের জন্য র‌্যাম্পটি খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানিয়েছে সিডিএ।
এদিকে গতকালও দিনভর আতংকের মধ্যে উৎসুক জনতা ভিড় করেছে ‘ফাটল’ দেখতে। ফাটলের ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে মধ্যরাতে বহদ্দারহাট ফ্লাইওভার এলাকায় উৎসুক মানুষ ভিড় করেন।এ সময় দুর্ঘটনা এড়াতে তারা দ্রুত সময়ে ফাটলটি সারিয়ে তোলার দাবি জানান। ঘটনাস্থলে নিরাপত্তার স্বার্থে আপাতত ফ্লাইওভারের র‌্যাম্পে যান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। ফ্লাইওভারের নিচে রাস্তার ভাসমান দোকানগুলো সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

যানজট নিরসনে সিডিএ নগরের শুলকবহর থেকে বহদ্দারহাট এক কিলোমিটার এলাকা পর্যন্ত এম এ মান্নান ফ্লাইওভার নির্মাণের উদ্যোগ নেয়। ২০১০ সালের জানুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রী ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। ২০১২ সালের নভেম্বরে নির্মাণাধীন এই ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে ১৪ জন নিহত হয়। এরপর নির্মাণ কাজ তদারকির দায়িত্ব পায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। নির্মাণ কাজ শেষে ২০১৩ সালের ১২ অক্টোবর ফ্লাইওভারের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পর ফ্লাইওভারটি কার্যকর না হওয়ায় ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে আরাকান সড়কমুখী র‌্যাম্প নির্মাণের উদ্যোগ নেয় সিডিএ। ৩২৬ মিটার দীর্ঘ এবং ৬ দশমিক ৭ মিটার চওড়ার র‌্যাম্পটি নির্মাণ শেষে ২০১৭ ডিসেম্বরে যান চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয়।