ব্রেকিং নিউজ » সর্বত্র মশার দাপটে অতিষ্ঠ নগরবাসী

ব্রেকিং নিউজ » সর্বত্র মশার দাপটে অতিষ্ঠ নগরবাসী
সর্বত্র বেড়েছে মশার উপদ্রব। দিনে রাতে সর্বত্র মশার দাপটে অতিষ্ঠ নগরবাসী।চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এলাকায় এরই মধ্যে মশাবাহিত ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়াসহ মশাবাহিত রোগ নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন নাগরিকরা। সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে নিয়মিত মশার ওষুধ স্প্রে করার দাবি করা হলেও এর সুফল দেখছেন না নগরবাসী। মশার কামড় আর ভনভন শব্দে খুব অস্বস্তি সারাদিন মশার উৎপাত থাকলেও বিকাল, সন্ধ্যা ও ভোরে মশার অত্যাচারে টিকে থাকা দায় হয়ে পড়ে। কয়েল বা স্প্রে করেও রেহাই পাচ্ছেন না নগরবাসী চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মশক নিধন কর্মসূচি জোরালো না হওয়ায় ক্ষুব্ধ অনেকেই। বিষাক্ত মশার কয়েলের ধোঁয়া, ফ্লাইং ইনসেক্ট কিলার স্প্রে আর মশারির দিয়ে মশার উৎপাত থেকে রক্ষা পেতে চেষ্টা করেন তাদের কেউ কেউ।মশার কয়েলের ধোঁয়া, স্প্রে এগুলো শিশুদের জন্য ক্ষতিকর। এমনকি সহ্য করতে না পারলে বড়দের জন্যও ক্ষতিকর। শ্বাসকষ্টসহ নানা উপসর্গ দেখা দিতে পারে। শীতকালে অনেক অগ্নিকান্ডের সূত্রপাত হয় মশার কয়েল থেকেই। এই সময়ে কিছু করনীয় মশার উপদ্রব থেকে সুরক্ষা পেতে মশারিই সবচেয়ে নিরাপদ।মশকনিধন কার্যক্রম নেই বললেই চলে। মশার ওষুধ স্প্রে প্রতি ওয়ার্ডে ফগার মেশিন ও পর্যাপ্ত হ্যান্ড স্প্রে মেশিন কার্যক্রম প্রশ্নবৃদ্ধ । চসিকের পাশাপাশি নগরবাসীকেও এগিয়ে আসতে হবে। ফ্রিজ, এসি, ফুলের টব, নির্মাণাধীন ভবন, ডাবের খোসা, ফেলে রাখা টায়ারসহ কোথাও যাতে পানি জমে না থাকে সেদিকে নজর রাখতে হবে। স্বচ্ছ পানিতে বংশ বিস্তার করছে এডিস মশা। বাসা বাড়ির ঝোপঝাড় পরিষ্কার রাখতে হবে। সম্ভব হলে আমাদের সঙ্গে পরামর্শ করে সেপটিক ট্যাংকে ২৫০ মিলিলিটার কেরোসিন তেল সাবধানে ঢেলে দিতে পারেন ভবন মালিকরা।