কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যার ঘটনায় কাউকেই ছাড় নয়

কুমিল্লায় কাউন্সিলর হত্যার ঘটনায় কাউকেই ছাড় নয়
কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র ও ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং আওয়ামী লীগ নেতা সৈয়দ মো. সোহেল এবং আওয়ামী লীগ কর্মী হরিপদ সাহাকে এলোপাতাড়ি গুলি করে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দ্রুত বিচারের দাবি জানিয়েছে নিহতের স্ত্রী, ছেলে ও দুই কন্যা সন্তান।

বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় নিহত সোহেল ও হরিপদ সাহার বাড়িতে পরিবারের সদস্যদের দেখতে যান মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি। একই দাবি জানান নিহত আওয়ামী লীগ কর্মী হরিপদ সাহার স্বজনরা। নিজ কর্মী নিহত হওয়ায় ব্যাথিত এমপি বাহার নিহতের বাড়িতে গেলে স্বজনদের আত্মচিৎকার ও আহাজারিতে সেখানকার পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে।

এ সময় এমপি বাহার উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেন, একটি পিছিয়ে পড়া জনগোষ্টিকে এগিয়ে নিতে নিজেকে আত্মনিয়োগ করেছিল সোহেল, আমি তাকে সেভাবেই তৈরি করেছিলাম, আওয়ামী লীগের একজন নিবেদিত কর্মী ছিল সে। এমপি বাহার বলেন, সোহেল হত্যাকান্ডের জন্য আমার, দলের এবং ১৭নং ওয়ার্ডের মানুষের যে ক্ষতি হয়েছে তা পুরণ হবার নয়। সোহেল নির্বাচিত হয়ে আমার সাথে কথা বলে ১৭নং ওয়ার্ডের অনেক উন্নয়ন করেছে, আমি তাকে সবসময় সহযোগিতা করেছি। এই ঘটনার সাথে যারাই জড়িত তাদেরকে দ্রুত আটক করে বিচারের মুখোমুখি করা হবে, কাউকেই ছাড় দেওয়া হবে না।