সুচিকে (৪ বছর)কারাদণ্ড নিন্দার ঝড়

সুচিকে (৪ বছর)কারাদণ্ড নিন্দার ঝড়
সেনাবাহিনীর অভ্যুত্থানে মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত ও গৃহবন্দি নেত্রী অং সান সুচির বিরুদ্ধে প্রথম মামলার রায়ে তাকে ৪ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে মিয়ানমারের একটি আদালত।

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ কথা জানা যায়।

সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে উসকানি এবং কোভিড প্রোটোকল লঙ্ঘনের অভিযোগে প্রাকৃতিক দুর্যোগ আইনের অধীনে দেশটির আদালত মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থী নেত্রীকে এ সাজা দিয়েছে। তবে তাকে কবে কারাগারে রাখা হবে তা এখনও জানানো হয়নি।মিয়ানমারের ক্ষমতাচ্যুত গণতন্ত্রপন্থী নেত্রী অং সান সুচিকে সামরিক আদালতে কারাদণ্ড (৪ বছর) দেওয়ার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাই কমিশনার মাইকেল ব্যাশেলেট সহ বিশ্বের অনেক নেতা।

একই সঙ্গে তাকে অবিলম্বে মুক্তির আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। সোমবার এক বিবৃতিতে সংস্থাটির এ অবস্থানের কথা জানান ব্যাশেলেট।

মাইকেল ব্যাশেলেট বলেন, সু চিকে দোষী সাব্যস্ত করায় মিয়ানমারে রাজনৈতিক সংলাপের আরেকটি দরজা বন্ধ করে দিলো সেনাবাহিনী। সামরিক আদালতে সুচির কারাদণ্ডের এ ঘটনা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সামরিক বাহিনী আদালতকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে।তিনি আরও বলেন, অভ্যুত্থানের পর থেকে জান্তা সরকার দশ হাজারেরও বেশি বিরোধী মতালম্বীকে আটক করেছে। এসময়ে সুচি’র ন্যাশনাল লীগ অফ ডেমোক্রেসি (এনএলডি) পার্টির সদস্যসহ অন্তত ১৭৫ জন সেনাবাহিনীর হেফাজতে থাকা অস্থায় মারা গেছেন।

অবিলম্বে রাজবন্দীদের মুক্তিতে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে জান্তা সরকারের প্রতি আহ্বান জানান ব্যাশেলেট।

৭৬ বছর বয়সী সুচি’র বিরুদ্ধে এখনও দুর্নীতি এবং নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগে মামলা চলছে। ১ ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে মিয়ানমারের ক্ষমতা দখল করে দেশটির সামরিক বাহিনী।