বলুয়ার দীঘির পাড় মা কালী মন্দিরে শ্রী শ্রী রাম ঠাকুর স্মরণ উৎসব

বলুয়ার দীঘির পাড় মা কালী মন্দিরে শ্রী শ্রী রাম ঠাকুর স্মরণ উৎসব
শ্রীশ্রী কৈবল্যনাথায় নমঃ
চট্টগ্রামের বলুয়ার দীঘির পাড় মা কালী মন্দিরে বৃহস্পতিবার সকাল ১০.৩০ ঘটিকায় মোহন্ত মহারাজ শ্রীমৎ কালীপদ ভট্টাচার্য শ্রীশ্রীঠাকুরের অনুগামী ভক্তদের মাঝে শ্রীনাম বিতরণ করেন ।
.
পরম দয়াল কৃপাসিন্ধু শ্রীশ্রীঠাকুরের ‘#শ্রীনাম’ বিতরণের একমাত্র মহাজন শ্রীশ্রী কৈবল্যধামের মোহন্ত মহারাজগণ। শ্রীশ্রীকৈবল্যধামের #কৈবল্যভান্ডার থেকে বিতরণকৃত ‘শ্রীনাম’ই রামাশ্রীতদের কৈবল্য (মুক্তির) প্রাপ্তির একমাত্র পথ।
.
কৈবল্যধামে অবস্থিত শ্রীশ্রী কৈবল্যনাথের পরম পূজ্যপাদ মোহন্ত মহারাজ ব্যতীত অন্য কোন অনধিকারী ব্যক্তির নিকট শ্রীশ্রীঠাকুরের শ্রীনাম গ্রহণ করলে তা কেবল কতগুলি বর্ণমাত্র গ্রহণ করা হয়। সেই নাম কখনোই পরম দয়াল শ্রীশ্রীঠাকুর রামচন্দ্রদেবের নয়। শ্রীশ্রীঠাকুরের অন্যতম ভক্ত ও পার্ষদ শ্রদ্ধেয় ঁশিতিকণ্ঠ সেনগুপ্ত মহাশয় এই প্রসঙ্গে চমৎকার মন্তব্য করেছেন, “নামে শক্তি সঞ্চার করা একমাত্র তাঁর (শ্রীঠাকুর বা তাঁর প্রতিনিধি কৈবল্যধামের মোহন্ত মহারাজ) পক্ষেই সম্ভব, যিনি সেই দিব্য চেতন ধারা (Divine sound current) বা শব্দ ধারার সাথে যুক্ত। কোন যান্ত্রিক উপায়ে বা লোক দেখানো কোন বাক্য প্রক্রিয়ার সাহায্যে নামে শক্তি সঞ্চার করা যায় না। ঐ সব ধর্মের ভড়ং মাত্র। মূল শক্তির উৎসের সাথে যুক্ত নাহলে শক্তি পাওয়া যাবে কেমন করে?
.
তাইতো অনধিকারী ব্যক্তির দেয়া নাম কতগুলি বর্ণ মাত্র। শত লক্ষ কোটি বার জপ করলেও তাতে কোন ফলোৎপাদন হয় না।বিকাল ৩.৩০ ঘটিকায় ভক্তিমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আলোচনা সভা