বাংলাদেশকে দক্ষিণ কোরিয়ার কাছ থেকে ৩০০ কোটি ডলার ঋণ

সহজ শর্তে দক্ষিণ কোরিয়ার কাছ থেকে ৩০০ কোটি ডলার ঋণ পেতে দেশটির সঙ্গে একটি ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি সই করেছে বাংলাদেশ। চুক্তি অনুযায়ী, অর্থনৈতিক উন্নয়ন সহযোগিতা তহবিলের (ইডিসিএফ) মাধ্যমে ২০২৩ থেকে ২০২৭ সাল পর্যন্ত ৫ বছরের জন্য এই ঋণের অর্থ বিতরণ করা হবে। ঋণের বিপরীতে বার্ষিক সুদের হার হবে ০.০১-০.০৫ শতাংশ।

বৃহস্পতিবার (৪ মে) দক্ষিণ কোরিয়ার ইনচিওনে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের (এডিবি) বোর্ড অব গভর্নরর্সের ৫৬তম বার্ষিক সাধারণ সভা উপলক্ষে এই চুক্তি স্বাক্ষর হয়।

ঢাকায় কোরিয়ান দূতাবাসের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়। দক্ষিণ কোরিয়ার অর্থনীতি ও অর্থ বিষয়ক ফার্স্ট ভাইস মিনিস্টার কিসুন বাং এবং বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) সচিব শরিফা খান নিজ নিজ পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করে।

এ উপলক্ষে ঢাকা এমআরটি লাইন ৪ এর সহযোগিতার জন্য দুটি প্রকল্পে ইডিসিএফ ঋণচুক্তিতে স্বাক্ষর করে। সিএনজিচালিত বাস ক্রয় এবং রেলওয়ে সিগন্যালিং ব্যবস্থার আধুনিকায়নে এই অর্থ ব্যয় হবে। উভয়পক্ষের সংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিরা চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন।

স্বাক্ষরিত চুক্তিটি দক্ষিণ কোরিয়ার সরকারের পক্ষ থেকে আগামী পাঁচ বছরের জন্য বাংলাদেশ সরকারকে ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার পর্যন্ত ছাড়ের ঋণ প্রদানের আইনি ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।

চুক্তি অনুসারে, ইডিসিএফ ঋণের পরিশোধের সময়কাল হবে ১৫ বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ ৪০ বছর। ঋণের বার্ষিক সুদের হার হবে ০.০১ থেকে ০.০৫ শতাংশ। কাঙ্ক্ষিত প্রকল্পগুলো ভবিষ্যতে দুই সরকারের মধ্যে ঘনিষ্ঠ আলোচনার মাধ্যমে চিহ্নিত করা হবে।

নতুন ফ্রেমওয়ার্ক চুক্তি স্বাক্ষরের মাধ্যমে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে দক্ষিণ কোরিয়ার অফিসিয়াল ডেভেলপমেন্ট এইড (ওডিএ) এর দ্বিতীয় বৃহত্তম প্রাপক হয়ে উঠেছে। কোরীয় সরকার এ পর্যন্ত ইডিসিএফ-এর মাধ্যমে ৩০টি উন্নয়ন প্রকল্পে মোট ১.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের ঋণ সহায়তা পেয়েছে।