পুতিন-কিম বৈঠকে ব্যাপক কৌতুহল

উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং উনের সঙ্গে বৈঠক করেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। রাশিয়ার সূদুর পূর্বাঞ্চলের আমুরে অবস্থিত ভোসতোচনি রকেট ও মহাকাশ কেন্দ্রে এই দুই নেতা বৈঠকে মিলিত হন।

বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) রাশিয়ায় সফররত উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা কিম জং উনের সঙ্গে দেখা করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। বুধবার সকালে ভোস্টোচনি কসমোড্রোমে কিমকে স্বাগত জানান রুশ প্রেসিডেন্ট। এ সময় একে অপরের সঙ্গে হ্যান্ডশেক করেন।মহাকাশ কেন্দ্রের ভেতর নিয়ে যেতে বাইরে বের হয়ে আসেন পুতিন নিজে। , ওই সময় কিমকে পুতিন বলেন, ‘আপনাকে দেখে খুব খুশি হয়েছি। ভ্রমণ কেমন ছিল?একে অপরকে শুভেচ্ছা জানানোর প্রথম বাক্যে পুতিন কিমকে বলেন, আপনার ব্যস্ত সময় সূচিতেও আমাদের আমন্ত্রণ গ্রহণের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। এটি আমাদের নতুন কসমোড্রোম।

এর জবাবে উত্তর কোরিয়ান নেতা পুতিনকে ধন্যবাদ জানান। তিনি ‘খুবই উষ্ণ অভ্যর্থনার’ জন্য পুতিনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে বলেন, ‘কাজে ব্যস্ত থাকা সত্ত্বেও আমাদের আমন্ত্রণ জানানোর জন্য ধন্যবাদ।’যেখানে তারা বিভিন্ন ইস্যুতে আলোচনা করছেন। রাশিয়ার পূর্বে একটি আধুনিক মহাকাশ কেন্দ্রে বৈঠকে অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ২০১৯ সালের পর দুজনের প্রথম সাক্ষাৎ।

এদিকে প্রায় দুই দিন ট্রেনে চড়ে উত্তর কোরিয়া থেকে রাশিয়ায় এসে পৌঁছান কিম জং উন। রুশ প্রেসিডেন্টের দপ্তর ক্রেমলিনের মুখমাত্র দিমিত্রি পেসকোভ দুই নেতার বৈঠক সম্পর্কে বলেছিলেন, তাদের মধ্যে ‘খুবই স্পর্শকাতর’ বিষয় নিয়ে আলোচনা হবে। এছাড়া আলোচনায় থাকবে দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বিষয়ও

এদিকে পুতিন এবং কিমের এ বৈঠকটি একটি দ্বিপাক্ষিক অর্থনৈতিক বৈঠক হিসেবে বলা হলেও, পশ্চিমারা দাবি করছে, মস্কোর সঙ্গে অস্ত্র চুক্তি করতে রাশিয়ায় গেছেন কিম। বেশ কয়েকজন সিনিয়র সামরিক কর্মকর্তাকে সঙ্গে নিয়ে রাশিয়া সফরে গেছেন কিম। এই সফরের এজেন্ডায় অস্ত্র বিক্রির বিষয়টি শীর্ষে আছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

পুতিনের-কিমের এই সাক্ষাতের কয়েক ঘণ্টা আগে ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালায় উত্তর কোরিয়া